Alliance for Bangladesh Worker Safety

বাংলা

ঢাকায় এ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশ ওয়ার্কার সেফটিসমন্বয় অফিসের শুভ উদ্বোধন

.

signing-baordআসন্ন প্রকাশের জন্য: ডিসেম্বর ৯,২০১৩

বাংলাদেশ গার্মেন্ট ফ্যাক্টরির নিরাপত্তা পরিস্থতি উন্নয়নেরঅঙ্গিকার নিয়েসম্পূর্ণ প্রস্তুত বাংলাদেশ টিম ।

ঢাকা - বাংলাদেশ গার্মেন্ট ফ্যাক্টিরর জন্য একটি উন্নত অগ্নি এবং স্থাপনানিরাপত্তা ব্যাবস্থা গড়ে তোলার যে প্রচেষ্টা সেই প্রচেষ্টাকে তরান্বিত করতেসরেজমিনে কাজ শুরু করার লক্ষ্য নিয়ে আজকে ঢাকায় এ্যালায়েন্স ফর বাংলাদেশওয়ার্কার সেফটি তাদের দাপ্তরিক কাজ শুরুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করছে

 

 " ঢাকায় আমাদের উপস্থিতির আয়োজন করায় আমরা সম্মানিত বোধ করছি, গার্মেন্ট ফ্যাক্টরির নিরাপত্তা বিষয়ক যে লক্ষ্য আমাদের রয়েছে তা দ্রুত অর্জনে এই আয়োজন সহায়ক ভূমিকা পালন করবে," বলেছেন এ্যালায়েন্স প্রেসিডেন্ট জেফরি ক্রিলা । তিনি আরো বলেছেন," এ্যালায়েন্স ফ্যাক্টরি শ্রমিকদের পরিস্থিতি উন্নয়নে এ্যালায়েন্স যে অগ্রগতি সাধনকরেছে তাতে আমরা গর্বিত । পোশাক শিল্পের নিরাপত্তা বিষয়ক একটি নতুন মানদন্ড প্রনয়ননিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমরা আমাদের বাংলাদেশি মিত্রদের সঙ্গে পাশাপাশি কাজ করতেপ্রতিশ্রুতবদ্ধ"

জুলাইয়ে গঠিত এ্যালায়েন্স বাংলাদেশ শ্রমিক নিরাপত্তা উদ্দ্যোগ (ওয়ার্কার সেফটি ইনিশিয়েটিভ-)এরসূচনা করে - এটি একটি পাঁচ বছরের দায়বদ্ধতামূলক পরিকল্পনা যেখানে একটি অদম্য সময়সীমা প্রনয়ন করা হয়েছে এবং এটি শ্রমিক ক্ষমতায়ন,প্রশিক্ষণ এবং পরিদর্শনের জন্যজবাবদিহি করতেবাধ্য থাকবেএ্যালায়েন্স নেতৃবৃন্দ এ্যালায়েন্সের পাঁচ বছরের সুনির্দিষ্টকর্মপরিকল্পনা সংক্রান্ত শুরুর দিকের অর্জনগুলোতে গুরুত্বারোপ করছে, যার ভেতরঅন্তর্ভুক্ত রয়েছে:

  • সরবরাহকারিদের মাসিক তথ্য প্রকাশ,যার ভেতর অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এ্যালায়েন্স জোটভুক্ত ৬৮৬টি কারখানার উপাত্ত ।
  • অগ্নি এবং ভবন নিরাপত্তা বিষয়ক একটি সমন্বিত বিধি প্রণয়ন
  • জুলাই২০১৪ এর ভেতর এ্যালায়েন্সের ১০০% কারখানায় শ্রমিক ও কতৃপক্ষের নিরাপত্তাজনিত প্রশিক্ষণসূচি প্রনয়ণ ।
  • ঢাকা অফিস উদ্বোধন এবং ১৫ জন স্থানীয় কর্মকর্তা নিয়োগ প্রদান করাহয়েছে যারা সরেজমিনে বাস্তবায়নের নেতৃত্ব দেবে

"আমাদের জাতির এই গুরুত্বপূর্ণ তৈরি পোশাক শ্রমিকদের স্বাস্থ্য এবং নিরাপত্তার ভয়াবহতা আন্তর্জাতিকভাবে এরআগে কখনই এতটা গুরুত্ব পায়নি," বলেছেন মুহাম্মদ রুমি আলি, ম্যানেজিং ডিরেক্টর অব্ এন্টারপ্রাইসেস এন্ড ইনভেস্ট অ্যাট ব্রাক ।" এখন সময় এসেছে সরকার, ব্যাবসায়ি এবং সুশিল সমাজ একত্রিত হয়ে সারা বাংলাদেশের শ্রমিকদের জন্য একটি নতুন টেকসই বিধি প্রনয়ন করা ।'

পাঁচ বছরের প্রয়োজনিয় অর্থের যোগান দিচ্ছে এ্যালায়েন্সের সদস্যরা - সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি শুরুর লক্ষ্যে বর্তমানে প্রদেয় অর্থের পরিমান ৫০ মিলিয়ন ডলার, যেসব ফ্যাক্টরি মালিকরা ফ্যাক্টরি নিরাপত্তা ব্যাবস্থা উন্নয়নে কাজ করছে তাদের সহায়তার জন্য আরও কিছু কম্পানি আরো অতিরিক্ত বরাদ্দের ফলে সর্বমোট ১০০ মিলিয়ন ডলারের প্রস্তাব করেছে ।

"আমাদের এই কাজে আন্তর্জাতিক ব্যবসায়ি, সরকার এবং সুশিলসমাজের নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহনের প্রয়োজনিয়তা রয়েছে - কিন্তু আমাদের প্রধান লক্ষ্য হলো এই বাংলাদেশের লক্ষ লক্ষ শ্রমিকদের জীবনমানের পরিবর্তন ঘটানো," বলেছেন মেসবাহ রবীন, এ্যালিয়েন্স -এর মহাব্যাবস্থাপক (ঢাকা অফিস) । "আমরা আমাদের অনেক অংশিদারদের সম্পদ, বিশেষজ্ঞ এবং সত্যিকারের প্রতিশ্রুতির অপেক্ষায় রয়েছি যা একটি টেকসই উন্নয়নে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রাখবে"

"বিগত বছরগুলোয় গার্মেন্ট ফ্যাক্টরি ট্র্যাজেডি বয়ে এনেছে অসংখ্য মর্মান্তিক মৃত্যু," বলেছেন মোহাম্মদ আতিকুল ইসলাম, প্রেসিডেন্ট অব দি বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার এন্ড এক্সপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশন(বিজিএমইএ) এবং অ্যালায়েন্স পরিচালনা পর্ষদের একজন সদস্য । "বিজিএমইএ আমাদের সদস্য ফ্যাক্টরি শ্রমিকদের নিরাপত্তা উন্নয়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং এ্যালায়েন্সের সাথে একযোগে বিজিএমইএ সেই সকল চিহ্নিত সমাধান বাস্তবায়নে গর্বিত, যা ভবিষ্যতের যে কোনো মর্মান্তিক পরিণিতি নিবৃত করবে "



More Featured News...

 

অ্যালায়েন্স সম্পর্কে বারংবার করা প্রশ্ন

বিস্তারিত এফএকিউ –এ দেখুন অ্যালায়েন্স সম্পর্কে বারংবার করা প্রশ্ন এবং সেগুলোর উত্তর